আপনি যদি লং টার্ম উইন্ডোজ ইউজার হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি অবশ্যই জানেন যে উইন্ডোজ ১০ এর শুধুমাত্র একটি এডিশন নয়, কয়েক ধরনের এডিশন আছে, যার মধ্যে সবথেকে জনপ্রিয় দুটি এডিশন হচ্ছে উইন্ডোজ ১০ প্রো এবং উইন্ডোজ ১০ হোম এডিশন। আপনি কোন নতুন ল্যাপটপ বা ডেস্কটপে উইন্ডোজ ১০ ইন্সটল করার সময় দুটি অপশন দেখে হয়তো চিন্তা করেছেন যে আপনার জন্য কোন এডিশনটি ইন্সটল করা বেস্ট চয়েজ হবে।

উইন্ডোজ ১০ হোম এবং প্রো-র মধ্যে পার্থক্যটাই বা কি? যদিও অধিকাংশ সময়ই আমরা কোনকিছু চিন্তা না করেই উইন্ডোজ ১০ এর প্রো এডিশন ইন্সটল করি যেহেতু এটা শুনতে বেশি ভালো লাগে, তবে উইন্ডোজ ১০ এর এই দুটি এডিশনের মধ্যে কয়েকটি মেজর ডিফারেন্স আছে। এসব পার্থক্যগুলো জানতে হয়তো আপনার জন্য নেক্সট টাইম উইন্ডোজ ১০ এর কোন এডিশন ইন্সটল করা উচিৎ তা ডিসাইড করাটা আরেকটু সহজ হবে। তাই আজ উইন্ডোজ ১০ প্রো vs উইন্ডোজ ১০ হোমের এই পার্থক্যগুলো নিয়েই কথা বলা যাক।

উইন্ডোজ ১০ প্রো এর দাম বেশি

এটাই সম্ভবত উইন্ডোজ ১০ প্রো এবং হোমের মধ্যে সবথেকে বড় পার্থক্য। আপনি উইন্ডোজ ১০ এর হোম এডিশনের লাইসেন্স ১৪০ ইউএস ডলার দামে কিনতে পারবেন। কিন্তু উইন্ডোজ ১০ প্রো-এর লাইসেন্সের জন্য আপনার গুনতে হবে ২০০ ইউএস ডলার। দুই ক্ষেত্রেই আপনি সিংগেল পিসি লাইসেন্স পাবেন। তবে এগুলো রিটেইল লাইসেন্স নয়, অর্থাৎ আপনি চাইলে একটি পিসি থেকে আরেকটি পিসিতে এই লাইসেন্স ট্রান্সফার করতে পারবেন। কিন্তু আপনার নতুন কেনা ল্যাপটপ বা ডেক্সটপটি যদি শো-রুম থেকেই প্রিলোডেড উইন্ডোজ ১০ এর OEM কপি-সহ আসে, সেক্ষেত্রে আপনি লাইসেন্স ট্রান্সফার করার সুবিধা পাবেন না। তবে আমাদের দেশে যেখানে অধিকাংশ উইন্ডোজ ইউজাররাই ক্র্যাক বা অ্যাক্টিভেটর ব্যাবহার করে উইন্ডোজ ইউজ করেন, তাদের কাছে উইন্ডোজ ১০ প্রো এবং হোমের এই ৬০ ডলার প্রাইস ডিফারেন্স তেমন বড় কোনকিছু নাও মনে হতে পারে।

উইন্ডোজ ১০ প্রো-তে বেশি ফিচারস আছে

যদি উইন্ডোজ ১০ প্রো এবং হোমের টেকনিক্যাল ডিফারেন্সের কথা বলেন, তাহলে জেনে রাখা ভালো, উইন্ডোজ ১০ প্রো-তে বেশ কিছু এক্সট্রা ছোট ছোট টুলস এবং ফিচারস রয়েছে যেগুলো আপনি উইন্ডোজ ১০ এর হোম এডিশনের পাবেন না। নিচে এমন কয়েকটি ফিচারের নাম দেওয়া আছে, যেগুলো আপনি শুধুমাত্র উইন্ডোজ ১০ প্রো এডিশন ব্যাবহার করলেই পাবেন, হোম এডিশনে পাবেন না।


Domain and Web Hosting in BD
  • বিটলকার এনক্রিপশন
  • WIP (উইন্ডোজ ইনফরমেশন প্রোটেকশন)
  • গ্রুপ পলিসি এডিটর
  • মোবাইল ডিভাইস ম্যানেজমেন্ট
  • মাইক্রোসফট অ্যাজিউর এবং রিলেটেড সার্ভিসেস
  • অ্যাসাইনড অ্যাকসেস
  • উইন্ডোজ আপডেট ফর বিজনেস
  • উইন্ডোজ স্টোর ফর বিজনেস

উইন্ডোজ ১০ প্রো বেশি র‍্যাম এবং সিপিইউ সাপোর্ট করে

বেশি ফিচারস এবং টুলস থাকার পাশাপাশি উইন্ডোজ ১০ প্রো এর আরো কিছু অ্যাডভান্টেজ আছে যেগুলো আপনি উইন্ডোজ ১০ হোমে পাবেন না। তেমনই আরেকটি অ্যাডভান্টেজ হচ্ছে, উইন্ডোজ ১০ প্রো হোমের তুলনায় আরো বেশি হার্ডওয়্যার রিসোর্স ব্যাবহার করতে সক্ষম। যেমন- আপনি শুধুমাত্র একটি সিপিইউ ব্যাবহার করে উইন্ডোজ ১০ হোম রান করতে পারবেন, একটির বেশি সিপিইউ একইসাথে ব্যাবহার করতে পারবেন না। তবে আপনি যদি চান, আপনি দুটি সিপিইউ একইসাথে একইসময়ে ব্যাবহার করে উইন্ডোজ ১০ প্রো রান করতে পারবেন, কারণ উইন্ডোজ ১০ প্রো বেশি রিসোর্স সাপোর্ট করে।

উইন্ডোজ ১০ হোমের তুলনায় উইন্ডোজ ১০ প্রো-এর হার্ডওয়্যার লিমিট শুধুমাত্র বেশিই নয়, অনেক বেশি। যেমন- উইন্ডোজ ১০ প্রো সর্বোচ্চ ২ টেরাবাইট পর্যন্ত র‍্যাম সাপোর্ট করে যেখানে উইন্ডোজ ১০ সাপোর্ট করে সর্বোচ্চ ১২৮ জিবি পর্যন্ত।


Domain and Web Hosting in BD

স্যান্ডবক্স এবং ভার্চুয়াল ম্যাশিনের সাপোর্ট নেই উইন্ডোজ ১০ হোম এডিশনে

উইন্ডোজ ১০ এর কয়েকটি ফিচারস আছে যেগুলো খুব বেশি ইম্পরট্যান্ট না হলেও ইউজ করা ভালো এবং অনেকসময় আপনার দরকার হতেও পারে। এমন কয়েকটি ফিচার আপনি উইন্ডোজ ১০ হোম এডিশনে পাবেন না। যেমন- উইন্ডোজ স্যান্ডবক্স নামের উইন্ডোজ ১০ এর নতুন একটি সিকিউরিটি টুল আছে, যা যেকোনো সম্ভাব্য ম্যালিশিয়াস অ্যাপসকে একটি আইসোলেটেড এনভার্নমেন্টে রান করে যাতে অ্যাপটি কোনভাবেই আপনার ডিভাইসের কোন ক্ষতি করতে না পারে। এই স্যান্ডবক্স ফিচারটি ব্যাবহার করতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই উইন্ডোজ ১০ প্রো ব্যাবহার করতে হবে।

শুধু তাই নয়, আপনি সাধারনত উইন্ডোজ ১০ হোম ভার্সনে ভার্চুয়াল ম্যাশিন অ্যাপস, যেমন ভার্চুয়ালবক্স ব্যাবহার করতে পারবেন না। যদিও আপনি চাইলে ভার্চুয়াল বক্স ব্যাবহার করতে পারবেন, তবে সেক্ষেত্রে আপনাকে একটি নতুন লাইসেন্স পারচেজ করতে হবে। এছাড়াও আপনি উইন্ডোজ ১০ হোম এডিশনে মাইক্রোসফট রিমোট ডেস্কটপ টুলটি পাবেন না, যা ইন্টারনেটের মাধ্যমে আপনার ডেক্সটপটি কনট্রোল করতে ব্যাবহার করা হয়। তবে এগুলোর জন্য অনেক থার্ড পার্টি সল্যুশনস আছে, যেমন- টিমভিউয়ার বা এনিডেস্ক। তাই এটা তেমন বড় কোন ইস্যু নাও হতে পারে।


Domain and Web Hosting in BD

আপনি কোনটা ব্যাবহার করবেন?

এটাই এখন সবথেকে ইম্পরট্যান্ট প্রশ্ন। আপনি উইন্ডোজ ১০ ইন্সটল করার সময় কোন এডিশন ইন্সটল করবেন বা যদি লিগ্যালি টাকা দিয়ে উইন্ডোজ ১০ এর লাইসেন্স কিনতে চান, সেক্ষেত্রে কোন এডিশনের লাইসেন্স কেনাটা বেশি ভালো হবে? সত্যি কথা বলতে এটার কোন স্ট্রেইট ফরওয়ার্ড উত্তর নেই। যদি উইন্ডোজ ১০ হোম এবং প্রো এর প্রাইস একই হতো, তাহলে আমরা যেকাউকেই নিঃসন্দেহে বলে দিতে পারতাম উইন্ডোজ ১০ প্রো ব্যাবহার করতে। কিন্তু উইন্ডোজ ১০ হোমের প্রাইস প্রো এর তুলনায় ৬০ ডলার কম। তাই এক্ষেত্রে আপনি কোনটা ব্যাবহার করবেন তা ডিপেন্ড করে আপনি কি কাজে আপনার ডেক্সটপ বা ল্যাপটপটি ব্যাবহার করার প্ল্যান করছেন, তার ওপরে।

উইন্ডোজ ১০ প্রো কি উইন্ডোজ ১০ হোম এডিশনের থেকে বেটার? অবশ্যই বেটার! কিন্তু উইন্ডোজ ১০ প্রো এর এসব এক্সট্রা টুলস এবং ফিচারস থেকে লাভ কি যদি আপনার এই ফিচারগুলো কখনো দরকারই না হয়? কোন লাভ নেই। বিটলকার এনক্রিপশন, উইন্ডোজ ইনফরমেশন প্রোটেকশন, ভার্চুয়াল ম্যাশিন সাপোর্ট, মাইক্রোসফট রিমোট ডেক্সটপ টুল এসব যদি আপনি কখনই ব্যাবহারই না করেন, তাহলে উইন্ডোজ ১০ প্রো এডিশনের জন্য এক্সট্রা ৬০ ডলার খরচ করার কোন মানেই হয়না। আর এগুলো ছাড়া আর কোনদিক থেকেই উইন্ডোজ ১০ প্রো এবং হোমের মধ্যে কোন পার্থক্য নেই। আপনি হয়তো ভাবতে পারেন যে উইন্ডোজ ১০ হোমের থেকে উইন্ডোজ ১০ প্রো বেশি ফাস্ট বা আরো বেটার পারফরমেন্স দেবে, কিন্তু তা একেবারেই সত্যি নয়। উইন্ডোজ ১০ এর হোম এডিশন এবং প্রো এডিশনের পারফরমেন্সের মধ্যে কোন পার্থক্য নেই।

যদি এক্সট্রা সিপিইউ এবং র‍্যাম সাপোর্টের কথা বলেন, তাহলেও হয়তো আপনি বেশি টাকা দিয়ে উইন্ডোজ ১০ প্রো এডিশন পারচেজ করতে চাইবেন না। যদি র‍্যামের কথা বলেন, তাহলে আমার মনে হয়না আপনি বা বর্তমান সময়ে কেউই নিজের পারসোনাল ডেস্কটপে সর্বোচ্চ ১২৮ জিবির বেশি র‍্যাম ব্যাবহার করতে চাইবে। কারণ বর্তমানে যেকোনো কাজের জন্য ৬৪ জিবি র‍্যামও ওভারকিলড। হ্যা, তবে যদি আপনি কোন কারণে দুটি সিপিইউ একসাথে একইসময়ে ব্যাবহার করে উইন্ডোজ ১০ রান করতে চান, সেক্ষেত্রে আপনাকে উইন্ডোজ ১০ প্রো এডিশনই পারচেজ করতে হবে।

তাই এখনো পর্যন্ত ৯৯% সময়ই যদি আপনি লিগ্যালি উইন্ডোজ ১০ এর লাইসেন্স পারচেজ করার কথা ভাবেন, তাহলে ৬০ ডলার সেভ করে উইন্ডোজ ১০ হোম পারচেজ করাটাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে। তবে যদি ফিউচারপ্রুফিং করতে চান এবং মনে করেন যে এমনো সময় আসতে পারে যে আপনাকে ডেস্কটপে ১২৮ জিবির বেশি র‍্যাম এবং ডুয়াল সিপিইউ ব্যাবহার করতে হচ্ছে, তাহলে একবারে বেশি দাম দিয়ে উইন্ডোজ ১০ প্রো নিয়ে নিতে পারেন!


This content is from WIREBD.